করোনা পরবর্তী বিশ্ব প্রেক্ষাপট

অন্বয় কর্মকার

করোনার মহামারীতে যে যার মতো জীবনযুদ্ধে অবতীর্ণ। সু্স্থভাবে বেঁচে থাকার লড়াইয়ে আজ পুরো বিশ্ব। কিন্তু অনেকেই হয়তো একবারও ভাবছেননা, করোনা পরবর্তী বিশ্ব পরিস্থিতির কথা। কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে আমাদের প্রিয় পৃথিবী। আসলেই কোন পথে যাচ্ছি আমরা? যে যাই বলুক না কেন, এটা একপ্রকার নিশ্চিত যে পৃথিবীর হিসেব নিকেশ বদলে দেবে কোভিড নাইন্টিন। কিন্তু কিভাবে???

১. প্রথমেই ধরা যাক অর্থনৈতিক সংকটের কথা। মাসের পর মাস ধরে চলা লকডাউনে প্রতিটি দেশেই স্থবির হয়ে পড়েছে অর্থনীতি। নিম্নমুখী জিডিপি আর মূল্যস্ফীতির চাপে থেমে গেছে অথনীতির চাকা। সেইসঙ্গে আছে বাংলাদেশের মতো দেশগুলোতে রেমিটেন্স প্রবাহ কমে যাওয়ার ধাক্কা। বিশ্বের অধিকাংশ দেশেই ভেঙে পড়া এই অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে লেগে যেতে পারে কয়েক বছর।

২. পুরো বিশ্ব যখন করোনা ঠেকাতে ব্যস্ত, তখন অনেকটাই স্বাভাবিক পৃথিবীর অন্যতম অর্থনৈতিক পরাশক্তি চীন। কেবল চিকিৎসা উপকরণ সরবরাহ করেই কয়েক হাজার কোটি টাকার ব্যবসা করছে দেশটি। গেল কয়েক বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চলা বাণিজ্য যুদ্ধের কারণে যে ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিল চীন, করোনাকালে যুক্তরাষ্ট্র অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়ায় তা অনেকটাই কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবে তারা। শুধু তাই নয়, বিশ্বের শেয়ার বাজারগুলোতেও এই মুহূর্তে চীনা আধিপত্য পরিষ্কার। আর তাই করোনা পরবর্তী বিশ্ব প্রেক্ষাপটে পৃথিবীর এক নম্বর অর্থনৈতিক শক্তি হয়ে উঠবে চীন।

৩. করোনার কারণে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপসহ বিশ্বের প্রায় প্রতিটি প্রান্তেই রেকর্ড পরিমাণে বেড়েছে কর্মহীন মানুষের সংখ্যা। প্রতিষ্ঠান বাঁচাতে অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানই বেছে নিয়েছে ছাঁটাইয়ের পথ। ফলে করোনা পরবর্তী বিশ্বে বেকারত্বের হার আগের সব রেকর্ডকে ছাড়িয়ে যাবে, সেটি প্রায় অবধারিত। ধস নামবে চাকরির বাজারেও।

৪. করোনা পরবর্তী সময়ে মুখ থুবড়ে পড়বে পর্যটন খাত। বিশ্ব পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত মানুষ ভ্রমণ করবেনা তা এক প্রকার নিশ্চিত। ফলে, এয়ারলাইন্স থেকে শুরু করে হোটেল ব্যবসা, ট্রাভেল এজেন্সির মতো ব্যবসায় নামবে বড় ধরনের ধস। এক্ষেত্রে পর্যটনের উপর নির্ভরশীল রাষ্ট্রতো বটেই, গোটা বিশ্বেই পর্যটনখাতে দেখা দেবে আকাল, যেটি স্বাভাবিক হতে লেগে যেতে পারে কমপক্ষে এক থেকে দেড় বছর।

৫. করোনা পরবর্তী বিশ্বে নতুন করে নির্ধারিত হতে পারে কয়েকজন বিশ্ব নেতার ভাগ্য। নভেম্বরে আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। কোভিড মোকাবিলায় নিজের বিতর্কিত ভূমিকার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের কারণে ডোনাল্ড ট্রাম্পের জন্য কঠিন হতে পারে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় আসা। শুধু ট্রাম্প নন, করোনা যে আরও কয়েকজন বিশ্বনেতার বিদায়ঘন্টা বাজাবেনা, তা কে জানে?

৬. সামাজিক দুরত্বের চাপে হুমকির মুখে পড়তে পারে হ্যান্ডশেক বা করমর্দনের ভবিষ্যত। জন্ম নিতে পারে আনুষ্ঠানিক কুশল বিনিময়ের নতুন কোন রীতি।

লেখক: অন্বয় কর্মকার, গণমাধ্যমকর্মী