এই তাহলে অনলাইন নিবন্ধন?

আদিত্য আরাফাত

বছর তিন ধরেই অনলাইন সংবাদপত্র কিংবা বিভিন্ন গণমাধ্যমের অনলাইন নিবন্ধন নিয়ে কম কথা হয়নি। পেশাদার সাংবাদিকরাই বারবার আওয়াজ তুলেছেন অনলাইন পোর্টালগুলোকে নিবন্ধনের আওতায় আনতে। এতে অন্তত পেশাদার অনলাইন সাংবাদিকতা টিকে থাকবে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকেও দুই বছর ধরে বলা হচ্ছে-দিবো, দিচ্ছি।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে নিউজ দেখলাম সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে সরকারের অনলাইন নিবন্ধন পেয়েছে ৪৪টি গণমাধ্যম। এরমধ্যে ৩৪টি অনলাইন নিউজপোর্টাল এবং ১০টি পত্রিকার অনলাইন। সরকারি বিধি-বিধান অনুসরণ করে নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে আগামী ২০ কার্যদিবসের মধ্যে এসব অনলাইন সংবাদমাধ্যমকে নিবন্ধন সম্পন্ন করার জন্য বলেছে তথ্য মন্ত্রণালয়।

খুব কৌতুহল হলো নিবন্ধন পাওয়া অনলাইনগুলোর তালিকা দেখার। চোখ কপালে উঠলো নিবন্ধন পাওয়া অনলাইনের তালিকা দেখে! হাতেগোনা তিন-চারটি ছাড়া অনেক নিউজপোর্টালের নামই শুনিনি। পেশাদার সাংবাদিকতা যারা করেন তাদের প্রায় পঞ্চাশজনের সাথে আমি কাল থেকে অনলাইনে-অফলাইনে কথা বলেছি, প্রায় সবার কথা পত্রিকার পোর্টাল ছাড়া তারা সর্বোচ্চ তিন চারটি অনলাইনের নাম শুনেছেন।

এবার দেখা যাক নিবন্ধন পাওয়া অনলাইন সংবাদমাধ্যমগুলো কি? তালিকায় আছে- টাইম বাংলা নিউজ ডটকম, বিডি২৪ লাইভ ডটকম, ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডটকম, নিরাপদ নিউজ ডটকম, ইপিবিডি ডটকম, একুশে সংবাদ ডটকম, বাংলা ট্রিবিউন, ঢাকা ট্রিবিউন ডটকম, বণিকবার্তাডটকম, ঢাকা টাইমসডটকম ডটবিডি, দ্য মেইল বিডি ডটকম, ইউ একাত্তর নিউজ ডটকম,নিবন্ধিত অনলাইন সংবাদমাধ্যমগুলোর মধ্যে রয়েছে- ভোরের কাগজ, দিনের শেষে ডটকম, সংবাদ প্রতিদিন২৪ডটকম, কারেন্ট নিউজ ডটকম ডটবিডি, লেটেস্ট নিউজ বিডি ডটকম, সময়ের চিত্র ডটকম, বার্তা৭১ ডটকম, দ্যা রিপোর্ট ২৪ ডটকম এবং ভোরেরপাতা ডটকম জার্নাল২৪ডটকম, আওয়ার নিউজ বিডি ডটকম, বিডিলাইভ ২৪ ডটকম, বাংলাদেশ ২৪ অনলাইন ডটকম, দ্য ফিন্যানসিয়াল এক্সপ্রেস বিডি ডটকম, উত্তরণ বার্তা ডটকম, জাগোবার্তা ডটকম, হটনিউজ২৪ বিডিডটকম, শেয়ারনিউজ২৪ ডটকম, সমকাল ডটনেট, জাগোনিউজ ডটকম, ওমেন আই ২৪ ডটকম, গ্রিনওয়াচ বিডি ডটকম, সি নিউজ ভয়েস ডটকম, এবিনিউজ ২৪বিডি ডটকম, আওয়ার নিউজ ২৪ ডটকম, বার্তা বাজার ডটকম, রাইজিং বিডি ডটকম, বর্তমান খবর ডটকম, ঢাকা ডিপ্লোমেট ডটকম, বিডি মর্নিং ডটকম, ই বার্তা ২৪ ডটনেট, জুম বাংলা ডটকম। প্রথম ধাপে এদেরই সরকার প্রাথমিক রেজিষ্ট্রেশনের অনুমতি দিয়েছে।

যারা ফোনে বা কম্পিউটারে অনলাইনে সংবাদ পড়েন তারাই বিচার করুক এ তালিকায় পেশাদার অনলাইন পোর্টাল কয়টি? ভুইফোড় অনলাইন কয়টি? কোন মানদণ্ডে তালিকার বেশিরভাগ নিবন্ধন পেলো সে প্রশ্ন থেকেই যায়।

এ দেশে চাইলে যখন-তখন ডোমেইন কিনে যে কেউ অল্প কিছু টাকার বিনিময়ে সম্পাদক বনে যেতে পারেন! দেশে এখন রীতিমতো নামসর্বস্ব অনলাইন পোর্টালের বিষ্ফোরণ! এসব অনলাইন পত্রিকার কারণে দেশের নামকরা নিউজ পোর্টালের সম্পাদক, সাংবাদিকরাও বিব্রত হচ্ছেন। দেশে নামসর্বস্ব অনলাইন পোর্টালের ভীড়ে মানসম্মত নিউজ পোর্টালও আছে। সংখ্যায় এগুলো হাতেগোনা কয়েকটি হলেও এদের পাঠকও কম নয়। এগুলোকে এখন মূলধারার সংবাদমাধ্যম হিসেবেই এখন বিবেচনা করা হয়। আশ্চর্যের বিষয়, এসব পোর্টালের বেশ কয়েকটি ৪৪টির তালিকায় নেই।

অপেশাদার পোর্টালগুলো যখন প্রথম ধাপে নিবন্ধন পেয়ে যান তখন নিবন্ধন দেয়ার মানদণ্ড নিয়ে প্রশ্ন আসাই স্বাভাবিক। প্রথম ধাপে নিবন্ধন পাওয়া এমন বেশ ক’টি পোর্টাল নিয়ে অনেকে আপত্তি তুলছেন। উদাহরণ দিয়ে তারা বলছেন, দু-একটি কম্পিউটার দিয়ে কপি-পেস্ট করে পোর্টাল চালিয়ে তারা প্রথম ধাপে নিবন্ধন পেয়েছেন।

সরকারের অনলাইন নিবন্ধন কার্যক্রমে পেশাদার সাংবাদিকরা আশার আলোই দেখছিলো। কিন্তু প্রথম ধাপে যে তালিকা প্রকাশ হয়েছে তার উল্লেখযোগ্য সংখ্যা নিয়েই প্রশ্ন থেকে যায়। তদবিরে বা অনিয়মের মাধ্যমে এ তালিকা হয়েছে কি-না এমন প্রশ্নও ওঠেছে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের উচিত, অনেক যাছাই-বাছাই করেই পেশাদার নিউজপোর্টাল এবং বিভিন্ন গণমাধ্যমের অনলাইনকে নিবন্ধন দেওয়া। না হলে, ‘যে লাউ সে কদুই’ থেকে যাবে।

লেখক: আদিত্য আরাফাত, সাংবাদিক ও অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট।